শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ১০:২১ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
দিনাজপুর থেকে প্রকাশিত সরকারি মিডিয়া তালিকাভুক্ত দৈনিক খবর একদিন পএিকার জন্য খানসামা, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট ও চিরিরবন্দরের জন্য উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। মেইল : khaborekdin2012@gmail.com। মোবাইল : 01714910779
সর্বশেষঃ
ফুলবাড়ীতে ঝড়ে উড়ে গেল প্রধান মন্ত্রীর উপহারের ঘরের চাল ফুলবাড়ীতে সড়ক দূর্ঘটনায় চালকসহ আহত ১০ যাত্রী ফুলবাড়ীতে আনসারদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ বীরগঞ্জে বজ্রপাতে এক নারী নিহত দিনাজপুরে সেন্ট ফিলিপস্ এলামনাই ফোরাম এর উদ্যোগে ঈদ উপহার প্রদান পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শুভেচ্ছা দিনাজপুরে বিভিন্ন আয়োজনে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত ত্যাগের মধ্যে যে আনন্দ আছে ভোগের মধ্যে তা নেই-হুইপ ইকবালুর রহিম বাংলাদেশের উন্নতির পথে বাধা সৃষ্টি করা স্বাধীনতা বিরোধীদের অপপ্রয়াস- এমপি গোপাল দিনাজপুর সরকারী মহিলা কলেজের উদ্যোগে অস্বচ্ছল জনগোষ্ঠীদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান

পঞ্চগড়ে আবারও মিললো ‘রেড কোরাল কুকরি’ সাপ

পঞ্চগড় সংবাদদাতা ॥ পঞ্চগড়ে আবারও দেখা মিলল বাংলাদেশে একেবারে নতুন প্রজাতির সাপ ‘রেড কোরাল কুকরি’র। এ নিয়ে বাংলাদেশে তৃতীয়বার দেখা গেল এই সাপ। তিনবারই তার দেখা মিলেছে উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে।
গত মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার কামাত কাজল দিঘী ইউনিয়নের টুনিরহাট গ্রামে শহিদুজ্জামান শহিদের বাড়িতে সাপটিকে আটক করা হয়। জানা যায়, বাড়ির পাশে থাকা বাঁশ বাগান থেকে রাত ৮টার সময় সাপটি বের হয়ে শহিদুজ্জামান শহিদের বাড়ির আঙ্গিনায় যায়। এসময় বাড়ির লোকজন সাপটিকে দেখতে পেয়ে চিৎকার করে। পরে স্থানীয় কয়েকজন ছেলে এসে দেখে সাপটিকে রেড কোরাল কুকরি সাপ বলে চিহ্নিত করে। পরে তারা কোনমতে অক্ষত অবস্থায় সাপটিকে আটক করে শহিদের কাছে রাখে। খবর পেয়ে বন্যপ্রাণী আলোকচিত্রী ফিরোজ আল সাবাহ গতকাল বুধবার দুপুরে ওই বাড়িতে গিয়ে সাপটি তার দায়িত্বে নেয়।
ফিরোজ আল সাবাহ বলেন, সাপটি দিনের বেলা সূর্যের আলোকে তেমনভাবে সহ্য করতে পারে না, যার কারণে রাতের আধারে মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে সন্ধায় ঝলই শালশিরী এলাকায় উপযুক্ত পরিবেশে সাপটিকে অবমুক্ত করা হয়। বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক আব্দুল্লাহ সাদিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য, গত ৭ ফেব্রুয়ারি বোদা উপজেলার ঝলইশালশিরি ইউনিয়নের কালিয়াগঞ্জ বাজারে প্রথম দেখা মেলে এই সাপের। দ্বিতীয় রেড কোরাল কুকরি’টিকে মেরে ফেলা হয় গত ২৬ ফেব্রুয়ারি পঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলাহাট টুনিরহাট এলাকায়। সর্বপ্রথম এই সাপের দেখা মেলে ১৯৩৬ সালে ভারতের উত্তরপ্রদেশের খেরি জেলায়। দীর্ঘ ৮২ বছর পর ২০১৯ সালে আবার উত্তর প্রদেশের খেরি জেলায় দেখা গিয়েছিল লাল প্রবাল সাপটি। এছাড়া নেপালের মহেন্দ্রনগর, চিতোয়ান ন্যাশনাল পার্ক, ভারতের নৈনিতাল, জলপাইগুড়ির বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সময়ে দেখা যায়।
উজ্জল কমলা ও লাল প্রবাল রঙ্গের এই সাপটি অত্যন্ত মোহনীয়। লাল সাপটি মৃদু বিষধারী ও অত্যন্ত নিরীহ। এই সাপটি পৃথিবীর দুর্লভ সাপদের একটি। পৃথিবীতে হিমালয়ের পাদদেশ দক্ষিণে ৫৫ আর পূর্ব-পশ্চিমে ৭০ কিলোমিটার এলাকায় দেখা যায়। সাপটি নিশাচর এবং বেশিরভাগ সময় মাটির নিচেই থাকে। সম্ভবত মাটির নিচে কেঁচো ও লার্ভা পিপড়ার ডিম ও উইপোকার ডিম খেয়ে জীবন ধারন করে। নরম মাটি পেলে মাটি খুঁড়ে ভিতরে চলে যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। মাটির ভিতরে থাকার জন্য রোসট্রাল স্কেল ব্যবহার করে সাপটি। রোসট্রাল স্কেল হলো সাপের মুখের সম্মুখ ভাগে অবস্থিত অঙ্গবিশেষ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন