মিথ্যা সংবাদ সম্মেলন ও হামলার বিরুদ্ধে দিনাজপুরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

Exif_JPEG_420

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দিনাজপুরে জোর পূর্বক অন্যের জমি দখলের চেষ্টা ও মিথ্যা সংবাদ সম্মেলনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৩ এপ্রিল শুক্রবার সকাল ১১টায় দিনাজপুরের বিরল উপজেলার মুরাদপুর গ্রামে এই মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মানববন্ধন কর্মসূচীতে মো: আব্দুর রাজ্জাক (৫০) লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমরা দীর্ঘদিন যাবত বিরল উপজেলার মুরাদপুর গ্রামে বসবার করে আসছি। আমাদের এই জমির মালিক আমার দাদা অসিরউদ্দিন। বৃটিশ, পাকিস্থান এবং বর্তমান বাংলাদেশ মাঠ জরিপেও উক্ত জমি আমাদের পরিবারের নামে রেকডভুক্ত হয়েছে।
গত ১৬ এপ্রিল শুক্রবার উক্ত জমিতে নির্মাণ কাজ চলাকালে আলম বিহারী ও তার লোকজন নিয়ে অতর্কিতে আমাদের উপর হামলা চালায়। এসময় আমি মো: আব্দুর রাজ্জাক ও আমার ছোট ভাই হাসানুর রহমান, আমার স্ত্রী রোজিন খাতুন, বড় ভাবি মারুফা বেগম, চাচা কাসেম, ও ছোট ভাই রকিব গুরুতর আহত হয়। আহতদের দিনাজপুর এম, আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভার্তি করানো হয়। আমাদেরকে আক্রমন করে আহত করার ঘটনা প্রতিবেশীদের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়ে।
উক্ত হামলার ঘটনাকে আড়াল করার উদ্দেশ্যে হামলাকারী ফরফাদ হোসেন মিথ্যা সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে আমার নামে ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে ফরহাদ হোসেন গং আমার ব্যক্তিগত বিষয়ে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেন। তারা দাবি করেন আমি পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী বলে পরিচয় দেই। যা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণার শামিল। আমি মূলত: দিনাজপুর পৌরসভায় হিসাব সহকারী (ভার:) হিসেবে কর্মরত আছি। আমি কোথাও কখনও নিজেকে প্রকৌশলী বলে পরিচয় দিইনি।
আমাদের পরিবার হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত পরিবার। গণ-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নৌ-পরিবহন মন্ত্রানালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি’র সুপারিশক্রমে পরপর তিন বার স্থানীয় দামাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির বিদ্যোৎসাহী সদস্য পদ লাভ করি। চলতি বছরেও তিনি আমাকে বিদ্যোৎসাহী সদস্য পদে মনোনয়ন দিয়েছেন।
এর আগেও হামলাকারী ফরহাদ হোসেন বিভিন্ন সময়ে উক্ত জায়গা দখলের অবৈধ চেষ্টা ও ভয়ভীতি প্রদান করে আসছিলেন। এ বিষয়ে গত ২৫শে এপ্রিল বিরল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী লিপিবদ্ধ করাই। এবং আদালতে একটি পিটিশন মামলা দায়ের করি। যার মামলা নং-৬৭/২০২১। এর পর থানায় কয়েক দফা বসা হলেও সন্ত্রাসী ফরহাদ হোসেন থানায় উপস্থিত হয়নি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন