শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
দিনাজপুর থেকে প্রকাশিত সরকারি মিডিয়া তালিকাভুক্ত দৈনিক খবর একদিন পএিকার জন্য খানসামা, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট ও চিরিরবন্দরের জন্য উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। মেইল : khaborekdin2012@gmail.com। মোবাইল : 01714910779
সর্বশেষঃ
দিনাজপুর শহরসহ জেলার ১৩টি উপজেলার প্রায় ৭ হাজার মসজিদে ঈদুল ফিতরের নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে ঝড়ে উড়ে গেল প্রধান মন্ত্রীর উপহারের ঘরের চাল ফুলবাড়ীতে সড়ক দূর্ঘটনায় চালকসহ আহত ১০ যাত্রী ফুলবাড়ীতে আনসারদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ বীরগঞ্জে বজ্রপাতে এক নারী নিহত দিনাজপুরে সেন্ট ফিলিপস্ এলামনাই ফোরাম এর উদ্যোগে ঈদ উপহার প্রদান পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির শুভেচ্ছা দিনাজপুরে বিভিন্ন আয়োজনে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত ত্যাগের মধ্যে যে আনন্দ আছে ভোগের মধ্যে তা নেই-হুইপ ইকবালুর রহিম বাংলাদেশের উন্নতির পথে বাধা সৃষ্টি করা স্বাধীনতা বিরোধীদের অপপ্রয়াস- এমপি গোপাল

বিরামপুরে তরমুজের দাম আকাশ ছোঁয়া

বিরামপুর সংবাদদাতা ॥ দিনাজপুরের বিরামপুরে মৌসুমী ফল হিসেবে তরমুজের বেশ জনপ্রিয়তা রেয়েছে। আবার সেই মৌসুমী রসালো ফল তরমুজ এখন ৪৫/৫০টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতারা সাধারণেরা অভিযোগ করে বলেন তরমুজ ব্যবসায়ীরা হঠাৎ করেই তাদের পছন্দ মত দাম হাকিয়েছেন।
মৌসুমী ফল তরমুজ বের হওয়ার পর থেকে ১ম রমজান থেকে ১৩ রমজান পর্যন্ত গতকাল তরমুজ ব্যবসায়ীরা ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে আসছিলো। কিন্তু আজ হঠাৎ করে ব্যবসায়ীরা ৪৫/৫০টাকা প্রতি কেজি দরে দাম হাকিয়ে তরমুজ বিক্রি করছেন। এতে করে অনেকের সাথে এবং ক্রেতা বিক্রেতার সাথে দাম নিয়ে রীতিমত ঝগড়া বিবাদে জড়িয়ে পড়ছেন।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, পৌর শহরের ইসলামী ব্যাংকের সামনে, অবসর মোড়,বাসষ্ট্যান্ড,রমুক্তিযোদ্ধা হোটেলের সামনে এবং লাইনপাড় বেশ কিছু দোকানদারা তারা ৪৫/৫০ টাকা কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করছে।
তরমুজ কিনতে আসা দিনমজুর মোকলেছ আলী বলেন, আমি সারাদিন কাজ করে ৩শ টাকা পাই উপার্জন করি। এই রোজগারে টাকায় চাল, ডাল, মাছ, তরকারি কিনলে আমার কাছে আর টাকা থাকেনা। তারপর ১টি তরমুজ ওজন ৫/৬ কেজি তার দাম আবার ২৫০ হতে ৩০০ টাকা। সারাদিন যা আয় করছি তা দিয়ে যদি তরমুজ কিনি তাহলে আমার সংসার চলবে কেমন করে। তাই আমার পক্ষে তরমুজ কেনা সম্ভব না।
তরমুজ কিনতে আসা আরেকজন ক্রেতা অটোচালক মানিক জানান, সারাদিন গাড়ী চালিয়ে ৪শ টাকা আয় করি, আর লোকজন না থাকায় আয় ও কিছুটা কম হচ্ছে। বেলা শেষে যা আয় করি কোন রকম বউ বাচ্চা পরিবার পরিজনদের নিয়ে খেয়ে পরে বেঁচে আছি। আমার এই রোজগারে তরমুজ কেনার সাধ্য কোথায়।
বাজারের কয়েকজন খুচরা তরমুজ ব্যবসায়ীরা জানান, বড় ব্যবসায়ীরা তরমুজ পাইকারী বাজার হতে শ’ হিসেবে কিনে তা আবার আমাদের কাছে কেজিতে বিক্রি করে। আমরাও তখন কেজিতে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি। বাজার মনিটরিং করলে কেজি কাহিনী উন্মোচন হবে বলে তারা মনে করছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন