মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ১০:৩০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
দিনাজপুর থেকে প্রকাশিত সরকারি মিডিয়া তালিকাভুক্ত দৈনিক খবর একদিন পএিকার জন্য খানসামা, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট ও চিরিরবন্দরের জন্য উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। মেইল : khaborekdin2012@gmail.com। মোবাইল : 01714910779
ব্রেকিং নিউজঃ
দিনাজপুরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক সচেতনতামূলক প্রচারণার উদ্বোধন দিনাজপুরে ভুমিহীন আন্দোলন রংপুর বিভাগীয় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত নিখোঁজ ৪ তরুণের সন্ধানের দাবীতে দিনাজপুরে মানববন্ধন জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সাবেক মন্ত্রী মরহুমা খুরশীদ জাহান হকের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন অঞ্জলী নারী উন্নয়ন সমবায় সমিতিকে নিবন্ধন ও সনদপত্র প্রদান দিনাজপুর নাট্য সমিতি শিল্পকলা পদকে মনোনীত হওয়ায় বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন নবনির্বাচিত কমিটির বীরগঞ্জে নিখোঁজের একদিন পর কৃষকের মৃতদেহ উদ্ধার নবাবগঞ্জে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত বিরামপুরে করোনা প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন, মাস্ক না পরলেই জরিমানা খানসামায় বেড়েছে জ্বর-ডায়রিয়া রোগী ॥ জনবল সংকটে সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

বীরগঞ্জে সাড়া ফেলেছে নিরাপদ সজবি বিক্রয় কেন্দ্র

বীরগঞ্জ সংবাদদাতা ॥ দেশে সবজি উৎপাদনে ব্যাপক ভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে রাসায়নিক সার এবং কীটনাশক। এর ফলে দেশের মানুষ যেমন রয়েছে স্বাস্থ্য ঝুকিতে তেমনি আক্রান্ত হচ্ছে নানা জটিল রোগে। এ থেকে মুক্তি পেতে কৃষি বিভাগ সারা দেশে ৮উপজেলার ৮ইউনিয়নে পরিবেশ বান্ধব কৌশলের মাধ্যমে ফসল উৎপাদন প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এ প্রকল্পের আওয়াতায় রংপুর বিভাগের দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সাতোর ইউনিয়নকে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থপনা (আইপিএম) মডেল ইউনিয়ন হিসেবে ঘোষনা করেছে।
উক্ত ইউনিয়নে ২০টি দলের ৫০০জন কৃষক-কৃষাণী আইপিএম পদ্ধতির প্রশিক্ষণ নিয়ে ১০০একর জমিতে সারা বছর ধরে রাসায়নিক ও বিষমুক্ত লাউ, ফুলকপি, বাধাকপি,বেগুন,টমেটো, করলা, শসা ইত্যাদি উৎপাদন করছে। এছাড়াও জৈব প্রযুক্তি ও জৈব বালাই নাশক ব্যবহার করে অন্যান্য কৃষকরা নিরাপদ ও বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করছে।
উৎপাদিত সবজি বিক্রয়ের লক্ষ্যে উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে বীরগঞ্জ পৌর শহরের দৈনিক বাজারে একটি নিরাপদ সবজি বিক্রয় কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। ক্রেতা সাধারণের হাতের কাছে নিরাপদ সবজি পৌছে দেওয়া এই উদ্যোগের লক্ষ্য এবং উদ্যেশ্য বলে জানান কৃষি বিভাগ।
সবজি বিক্রয় কেন্দ্রে আসা ক্রেতা মোঃ শাহাজাহান সিরাজ বুলবুল জানান, এটি একটি ভালো উদ্যোগ। কৃষি বিভাগের উদ্যোগে এই বিক্রয় কেন্দ্রের পন্য নিরাপদ এবং বিষমুক্ত। এটি ক্রেতাদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারলে এবং ক্রেতাদের আশ্বস্ত করতে পারলে এই উদ্যোগ সফলতার মুখ দেখবে। আমরাও চাই নিরাপদ ও বিষমুক্ত সবজি কিনতে। কিন্তু কোথায় পাওয়া যাবে এটি আমাদের জানা ছিল না।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আফরোজ সুলতানা লুনা বলেন, নিঃসন্দেহে কৃষি বিভাগের এই উদ্যোগটি প্রসংশসার দাবি রাখে। এই প্রকল্পটি সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে পারলে মানুষ অনেক রোগ থেকে রক্ষা পাবে। কারণ সবজিতে ক্ষতিকর রাসায়নিক সার এবং কীটনাশক ব্যবহারের ফলে মানুষ কিডনি, লিভার, চর্মরোগসহ মরণব্যাধি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। এ উদ্যোগের ফলে মানুষ কিছুটা হলেও এর থেকে পরিত্রাণ পাবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবুরেজা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, আইপিএম মডেল বলতে পরিবেশকে দুষণ মুক্ত রেখে এক বা একাধিক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে ফসলের ক্ষতিকর পোকা ও রোগ-বালাইকে অর্থনৈতিক ক্ষতির সীমার নীচে রেখে বিষ মুক্ত ফসল উৎপাদন করাকে বুঝায়। আইপিএম মডেল ইউনিয়নে ২০টি নিরাপদ সবজি উৎপাদনকারী দল গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি দলে ২৫জন সদস্য হিসেবে ৫০০জন কৃষক-কৃষাণী রয়েছে। এদের মধ্যে ৩০ভাগ নারী সদস্য রয়েছেন। প্রত্যেক সদস্যের ২০শতাংশ জমি নিয়ে ৫একর জমিতে সারা বছর আইপিএম পদ্ধতিতে সারা বছর বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করা হচ্ছে। উৎপাদিত সবজি ক্রেতাদের হাতের কাছে পৌছে দেওয়ার জন্য বিক্রয় কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। চাহিদা বাড়লে বিক্রয় কেন্দ্র বাড়ানো হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন