মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
দিনাজপুর থেকে প্রকাশিত সরকারি মিডিয়া তালিকাভুক্ত দৈনিক খবর একদিন পএিকার জন্য খানসামা, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট ও চিরিরবন্দরের জন্য উপজেলা প্রতিনিধি আবশ্যক। মেইল : khaborekdin2012@gmail.com। মোবাইল : 01714910779
ব্রেকিং নিউজঃ
দিনাজপুরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক সচেতনতামূলক প্রচারণার উদ্বোধন দিনাজপুরে ভুমিহীন আন্দোলন রংপুর বিভাগীয় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত নিখোঁজ ৪ তরুণের সন্ধানের দাবীতে দিনাজপুরে মানববন্ধন জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সাবেক মন্ত্রী মরহুমা খুরশীদ জাহান হকের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন অঞ্জলী নারী উন্নয়ন সমবায় সমিতিকে নিবন্ধন ও সনদপত্র প্রদান দিনাজপুর নাট্য সমিতি শিল্পকলা পদকে মনোনীত হওয়ায় বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন নবনির্বাচিত কমিটির বীরগঞ্জে নিখোঁজের একদিন পর কৃষকের মৃতদেহ উদ্ধার নবাবগঞ্জে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত বিরামপুরে করোনা প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন, মাস্ক না পরলেই জরিমানা খানসামায় বেড়েছে জ্বর-ডায়রিয়া রোগী ॥ জনবল সংকটে সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

দিনাজপুর সদরে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দিনাজপুরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। ফলে হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হওয়া রোগির সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আরো ৪৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর আগের দিন এই আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৩৩ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত জেলায় ৬০৬৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। একই সময়ে নতুন ২৪ জনসহ এ পর্যন্ত ৫৫৬৬ সুস্থ হয়েছেন। আর এ পর্যন্ত ১৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বর্তমানে দিনাজপুর জেলায় করোনায় আক্রান্ত রোগির সংখ্যা রয়েছে ৩৬৫ জন যা আগের দিন ছিল ৩৪২ জন।
দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ জানান, মঙ্গলবার (৮ জুন) দুপুর ১০টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় ১৪১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪৭ জনের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত রোগির সংখ্যা পৌঁছেছে ৬০৬৮ জনে। নতুন আক্রান্ত ৪৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলাতেই ৩০ জন। এছাড়া বিরামপুরে একজন, বীরগঞ্জে একজন, চিরিরবন্দরে একজন, হাকিমপুরে ৫ জন, কাহারোলে একজন ও পার্বতীপুর উপজেলায় ৮ জন। একই সময়ে নতুন আরো ২৪ জনসহ এ পর্যন্ত ৫৫৬৬ জন সুস্থ হয়েছেন। আর এখন পর্যন্ত ১৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার আক্রান্তের হার ছিল ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। যা আগের দিন ছিল ১৯ দশমিক ৪১ শতাংশ।
সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ জানান, দিনাজপুর সদর উপজেলাবাসিকে সতর্ক হওয়া ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানিয়ে বলেন, দিনাজপুর সদর উপজেলায় গত তিন সপ্তাহের কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ১৬-০৫-২০২১ হতে ২২-০৫-২০২১ তারিখ পর্যন্ত ৩২৬টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয় ৭৫ জন। এ সময়ে সংক্রমণের হার ছিল ২৩ দশমিক ০০ শতাংশ। আর কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন ৩ জন এবং মৃত্যুর হার ছিল ৪ দশমিক শতাংশ।
গত ২৩-০৫-২০২১ হতে ২৯-০৫-২০২১ তারিখ পর্যন্ত ৩৪৭টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয় ৮১ জন, সংক্রমণের হার ছিল ২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ। আর কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন ৪ জন এবং মৃত্যুর হার ছিল ৪ দশমিক৯৩ শতাংশ।
গত ৩০-০৫-২০২১ হতে ০৫-০৬-২০২১ তারিখ পর্যন্ত ৪৫১টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয় ১৪০ জন, সংক্রমণের হার ছিল ৩১ দশমিক ০৪ শতাংশ। এ সময়ে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন ৬ জন এবং মৃত্যুর হার ৪ দশমিক ২৮ শতাংশ।
তিনি আরো জানান, গত তিন সপ্তাহের শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, প্রথম সপ্তাহের তুলনায় তৃতীয় সপ্তাহে দ্বিগুণ কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগী (করোনা রোগি) শনাক্ত হয়েছেন এবং সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পেয়েছে ৮ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।
তিনি জানান, গত তিন সপ্তাহে সদর উপজেলার কোভিড-১৯ রোগী শনাক্তের হার জাতীয় ও দিনাজপুর জেলার সংক্রমণের হারে থেকে উল্লেখযোগ্যহারে বেড়েছে। দিনাজপুর পৌরসভা ও সদর উপজেলায় এলাকায় কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর হার গত তিন সপ্তাহে ৪ দশমিক ০০ শতাংশ হতে ৪ দশমিক ৯৩ শতাংশের মধ্যে ছিল যা জাতীয় পর্যায়ে মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৭ থেকে প্রায় আড়াই গুণ বেশী ছিল।
সিভিল সার্জন আরো জানান, সদর উপজেলার পৌর শহরের উপশহর, নিমনগর, কালিতলা, রামনগর, ঘাসিপাড়া, পুলহাট, পাটুয়াপাড়া, শেখপুরা, ফুলবাড়ী বাসস্ট্যান্ড, চাউলিয়াপট্টি, পাহাড়পুর, মুন্সিপাড়া, টিএন্ডটি রোড, মালদহপট্টি, হাউজিং মোড়, মাসিমপুর, জালালপুর প্রভৃতি এলাকায় সবচেয়ে বেশি কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগি (করোনা রোগী) শনাক্ত হয়েছেন। এসব এলাকায় ছাড়াও সদর উপজেলার অন্যান্য এলাকার লোকজনের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাতে উদাসীনতা পরিলক্ষিত হচ্ছে এবং মাস্ক পরিধানের হার খুব-ই নগণ্য। এ কারণে সদর উপজেলাবাসিকে সতর্ক হওয়া ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।
এদিকে দিনাজপুরে মোট আক্রান্ত ৬০৬৮ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় সবচেয়ে বেশী ৩৪৩৬ জন। এছাড়া বিরলে ৩৪৬, বিরামপুরে ৩৪১ জন, বীরগঞ্জে ১৭৭ জন, বোচাগঞ্জে ১৬৩ জন, চিরিরবন্দরে ২৪৭ জন, ফুলবাড়ীতে ২০৮ জন, ঘোড়াঘাটে ৯৩ জন, হাকিমপুরে ১১৭ জন, কাহারোলে ১৭৩ জন, খানসামায় ১২৫ জন, নবাবগঞ্জে ১৫৮ ও পার্বতীপুর উপজেলায় ৪৮৪ জন।
মোট মৃত ১৩৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৬৬, বিরলে ৮ জন, বিরামপুরে ৮ জন, বীরগঞ্জে ৬ জন, বোচাগঞ্জে ৫ জন, চিরিরবন্দরে ১২ জন, ফুলবাড়ীতে ৮ জন, হাকিমপুরে একজন, কাহারোলে ৫ জন, খানসামায় ৪ জন, নবাবগঞ্জে ৩ জন ও পার্বতীপুর উপজেলায় ১১ জন। তবে জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে ঘোড়াঘাট উপজেলায় এখন পর্যন্ত কারো মৃত্যু হয়নি।
সিভিল সার্জন জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ১৪২টিসহ এ পর্যন্ত ৪৪৪১১টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। আর গত ২৪ ঘন্টায় মোট ১৪১টিসহ এ পর্যন্ত ৪১৬৩৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ ছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় ১৪৭ জনসহ ৩৪৫২৫ জন কোয়ারেন্টাইন নেয়া হয়েছে এবং ৬৪ জনসহ ৩৩৯৬৭ জন কোয়ারেন্টাইন হতে ছাড় পেয়েছেন। বর্তমানে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ৩৩০ জন ও হাসপাতালে ৬০ জন ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে করোনায় আক্রান্ত ৩৫ জন আর উপসর্গযুক্ত সন্দেহভাজন ২৫ জন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন