দিনাজপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলো ২ হাজার ৫১৫টি গৃহহীন পরিবার

দিনাজপুর প্রতিনিধি॥ মুজিববর্ষ উপলক্ষে দিনাজপুর জেলায় ৩ হাজার ১২৫টি গৃহের মধ্যে (২য় পর্যায়) ২ হাজার ৫১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় গৃহ পেয়েছে ২১০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার।
রোববার (২০ জুন) সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে সারা দেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রমের (২য় পর্যায়) উদ্বোধন করেন। সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরের এসব ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যদের হাতে পরিবারের অনুকূলে সম্পাদিত কবুলিয়াত দলিল, নামজারি খতিয়ান এবং গৃহ প্রদানের সার্টিফিকেট প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
একই সময়ে সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ২১০টি ভ‚মিহীন ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যদের হাতে সম্পাদিত কবুলিয়াত দলিল, নামজারি খতিয়ান এবং গৃহ প্রদানের সার্টিফিকেট তুলে দেন দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকী।
এ সময় দিনাজপুর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার), জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদ সরকার, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মর্তুজা আল-মঈদ, কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মোজাফ্ফর হোসেন, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন আরা , রবিউল ইসলাম সোহাগ, শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রায়হান কবির সোহাগসহ উপকারভোগিগণ, জনপ্রতিনিধি, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সরকারী কর্মকর্তা, সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা দিনাজপুর সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ জসিম উদ্দিন।
উল্লেখ্য, ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদানের (২য় পর্যায়) কার্যক্রমের উদ্বোধনী করেন। দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় সর্বমোট ৩,১২৫টি গৃহের মধ্যে মোট ২,৫১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান করা হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের তালিকা অনুযায়ী দিনাজপুর সদর উপজেলায় ২৫০টির মধ্যে ২১০টি পরিবার ২য় পর্যায়ে গৃহ পেয়েছেন। চিরিরবন্দরে ১৩০টি, বিরল উপজেলায় ৩০টি, বোচাগঞ্জে ১০০টি, কাহারোলে ৯০টি, বীরগঞ্জে ৩৫০টির মধ্যে ২৬০টি, খানসামায় ৪৪৫টির মধ্যে ৩২৫টি, পার্বতীপুরে ১০০টি, ফুলবাড়ীতে ২০০টি, বিরামপুরে ৩৫০টির মধ্যে ২৭০টি, নবাবগঞ্জে ৪৫০টির মধ্যে ৩২০টি, হাকিমপুর ১১০টি ও ঘোড়াঘাট উপজেলায় ৫২০টির মধ্যে ৩৭০টি গৃহ পেয়েছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন