চড়ারহাট শহীদ স্মৃতি কলেজ অধ্যক্ষের অনিয়ম, দুর্নীতির প্রতিবাদে ও বেতনের দাবিতে শিক্ষক-কর্মচারী দ্বারা অধ্যক্ষ অবরুদ্ধ

মোঃ রিয়াজুল ইসলাম, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের চড়ারহাট বাজারে অবস্থিত চড়ারহাট শহীদ স্মৃতি কলেজে কমর্রত শিক্ষক-কর্মচারিদের বকেয়া বেতন-ভাতা আসন্ন ঈদুল আজাহার পূর্বে উত্তোলনের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে এবং কলেজের অধ্যক্ষের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদে অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিলেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। মঙ্গলবার (২৮ জুন) কলেজের একাডেমিক ভবনে দিনভর অবরুদ্ধ থাকার পরে অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা সন্ধ্যায় নবাবগঞ্জ থানার এস,আই আনোয়ারুল সহ কয়েকজন সাংবাদিকের উপস্থিতিতে ঈদের পূর্বেই শিক্ষক-কর্মচারিদের বকেয়া বেতন ও ভাতা উত্তোলন সহ কলেজের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের প্রতিশ্রুতি দেবার পরে অধ্যক্ষের বড় ভাই জুয়েল মাহমুদ কলেজ থেকে নিজ জিম্মায় অধ্যক্ষকে বাড়ি নিয়ে যান।
এমাদাদুল হক, রেজাউর রহমান ও রেহেনা বেগম সহ কলেজের কয়েকজন শিক্ষক জানান, অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফার স্বেচ্ছাচারিতায় মামলা সহ অন্যান্য কারণে ২০১৪ সাল থেকে অদ্যবধি চড়ারহাট শহীদ স্মৃতি কলেজে কোন ম্যানেজিং কমিটি গঠন হয়নি। সেজন্য কলেজের ২৮জন শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা উত্তোলনে প্রায় সময় সমস্যায় ভূগতে হয়। এছাড়াও কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি ও ফরম পূরণ সহ বিভিন্ন আয়ের টাকা অধ্যক্ষ ঠিকমতো ব্যাংকে জমা না দিয়ে কোথায় ও কিভাবে রেখেছেন, কাউকেই এর কোন হিসাব বা জবাব দেননা। দীর্ঘদিন ম্যানেজিং কমিটি না থাকায় কলেজ ফান্ডের টাকা অধ্যক্ষ তার ইচ্ছেমতো খরচ করছেন। এর আগে কলেজ অধ্যক্ষ সহ সকল শিক্ষক-কর্মচারী পরবর্তীতে ম্যানেজিং কমিটি গঠন পূর্বক বেতন-ভাতা উত্তোলনের ব্যবস্থা নিবে মর্মে স্ট্যাম্পে লিখিত দিয়ে গত ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ৫ মাসের বেতন উত্তোলন করেছে। কিন্তু ম্যানেজিং কমিটি গঠনে অধ্যক্ষের টালবাহানা ও কালক্ষেপণ করায় গত মে মাসে শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন উত্তোলন করতে পারেনি। সামনে ঈদুল আজহা, অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারিতায় ঈদের পূর্বে বেতন-ভাতা উত্তোলন অনিশ্চিত হওয়ায় কলেজের সব শিক্ষক-কর্মচারীরা অধ্যক্ষের নিকট এর সমাধান চাইলে তিনি টালবাহানা করলে শিক্ষক-কর্মচারীরা একজোট হয়ে অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে রাখে। শিক্ষক-কর্মচারিদের অভিযোগের বিষয়ে চড়ারহাট শহীদ স্মৃতি কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফার নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা জনিত কারণে শিক্ষা বোর্ড এতদিন কলেজের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অনুমতি দেয়নি। তবে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া চলছে, শীঘ্রই এর সমাধান হবে বলে তিনি জানান। তবে কলেজের আয়ের টাকা ব্যাংকে জমা দেয়ার রশিদ সহ হিসাবের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এর কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।
কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারিতা, অনিয়ম ও দুর্নীতির ঘটনা তদন্ত ও কলেজ পরিচালনায় স্বচ্ছতার জন্য দ্রুত ম্যানেজিং কমিটি গঠন করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন