1. admin@dailykhaborekdin.com : দৈনিক খবর একদিন :
  2. khaborekdin2012@gmail.com : Khabor Ekdin : Khabor Ekdin
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ
দিনাজপুরে ৭১ এর সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ এর মত বিনিময় সভায় / ৭১’এর মুক্তিযুদ্ধের শক্তিকে প্রস্তুত থাকতে হবে , অপশক্তি উঁকি দিচ্ছে বোচাগঞ্জে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা আয়োজন দিনাজপুর সদর ইউএনও’র আইন-শৃঙ্খলা সভা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মন্দির, মসজিদ পরিদর্শন অতীতের সরকারগুলো সাংবাদিকদের নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করার চেষ্টা করেছে-নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী দিনাজপুরে ৪ দফা দাবিতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মানববন্ধন ও শিক্ষামন্ত্রীসহ চার মন্ত্রনালয়ে বরাবর স্মারকলিপি প্রদান বোচাগঞ্জে শিশুদের মাঝে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ ডোমারের জোড়াবাড়ী ইউপি নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী যুবলীগ নেতা আজাহারুল ইসলাম জুয়েল দিনাজপুরে করোনায় আক্রান্ত ৮ ও মৃত্যু ১ জন, সুস্থ ১৮ জন আর করোনা উপসর্গ নিয়ে ২ জনের মৃত্যু বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে হাবিপ্রবিতে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত কাঞ্চন কলোনীতে ফুটবল ফাইনাল খেলায় বিজয়ীদের মধ্যে ট্রফি তুলে দিলেন কাউন্সিলর হাসিনা

মুক্তিযুদ্ধে পিতা পাক সেনার গুলিতে নিহত \ মেয়ে ধর্ষিত প্রমিলা আজ বীরঙ্গনা ও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চায়

দৈ‌নিক খবর একদিন ডেস্ক
  • সর্বশেষ সংবাদ সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭ বার প‌ঠিত

ষ্টাফ রিপোটার \ মুক্তিযুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনী কৃর্তক বাংলার পল্লী গ্রামে পাক সেনাদের হাতে সম্ভ্রম হারা গৃহবধুরা তাদের আতœকথা অনেকে বলেছেন আবার অনেকে লোক লজ্জার ভারে বলতে নারাজ। এ ভাবে অনেকে সত্য ঘটনার অনুসন্ধান করতে গিয়ে ৭১ এর সম্ভ্রম হারা নারীদের নিকট থেকে তাদের ভিতরের হাঁঃহাঁঃকারের চিত্র ফুটে উঠে। কয়েকজন নারী তাদের স্বিকার উক্তি মূলক বক্তব্য সংবাদ কর্মিদের কাছে তুলে ধরেন। তাদের মধ্যে একজন প্রমিলা দাশ পিতা সুকেশ চন্দ্র দাস বাড়ী নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার কামাড় পুকুর গ্রামে স্বাধীনতা যুদ্ধের এক বছর পূর্বে প্রমিলার বিয়ে হয়। তার বয়স ছিল ষোল বছর। বিয়ে হয় দিনাজপুর সদর উপজেলার ২নং সুন্দরবন ইউনিয়নের দাশ পাড়ায়। স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে প্রমিলার পিতা মেয়েকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। যুদ্ধকালীন সময় প্রমিলার পিতা সুকেশ মুক্তিযোদ্ধার সোর্সের কাজ করত মুক্তিযোদ্ধের খবরাখবর আদান প্রদান করত। এ খবর এলাকায় পাকসেনাদের নজরে পড়ে। এর কয়েক দিনের মধ্যে বিগত ০৬/১২/১৯৭১ ইং বিকাল ৫টা সময় সুকেশকে বাড়ি থেকে সাহেব ডেকেছে বলে তাকে নিয়ে যায় পার্শ্ববতী বাড়িতে। আধা ঘন্টা পর তাকে চিকলি ব্রীজ পর্যন্ত আগিয়ে দেয় এবং পিছন দিক থেকে পাক সেনারা তাকে গুলি করে হত্যা করে। পিতার রক্তের দাগ না শুকাতে পরদিন নিহত কিশোরী কন্যার খোজে বাড়িতে আসে। এসময় বাড়ি ও প্রতিবেশির লোকজন পালাতে থাকে। প্রমিলা সহ তিনজন কিশোরী একসঙ্গে নদীর ধার দিয়ে দৌড়াতে থাকে। দুই জন নদীতে ঝাঁপ দিলেও প্রমিলাকে ধরে ফেলে। পাশবিক অত্যাচারের এক পর্যায়ে জ্ঞান হারালে তাকে মৃত বলে পায়ের লাথি মেরে চলে যায়। পিতার মৃত্যু বোনের পাশবিকতার দৃশ্য দেখে তার বড় ভাই চন্দন দাশ বুক ঢুকরিয়ে কাঁদতে গিয়ে বাকশক্তি হারিয়ে ফেলে। সে সব কিছু হারিয়ে আজ ভিক্ষুকের জীবন যাপন করছেন। প্রমিলা দাশকে তার স্বামী পরিত্যাগ করে। সে অতি কষ্টে অপরের বাড়িতে মুজরী দিয়ে জীবন যাপন করছেন। এলাকায় তথ্য সংগ্রহ করতেগিয়ে ঘটনার অনেক সত্যতা মিলছে। সৈয়দপুর উপজেলার সাবেক বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইউনূস আলী উক্ত ঘটনা তুলে ধরে তার বর্ণনা দেন। এ ব্যাপারে তারা সৈয়দপুর বীরমুক্তিযোদ্ধা কমান্ড থেকে ভারতীয় তালিকা ভূক্ত তাদের তালিকা ও গেজেট নাম্বার তুলে ধরে প্রমিলা দাশের জন্য সুপারিশ করেছেন। গত ২৫/০৭/২০২১ ইং ইউপি চেয়ারম্যান অশোক কুমার রায়ের কাছে বীরঙ্গনা ও বীরমুক্তিযোদ্ধার জন্য সুপারিশ গ্রহন করেন। সে আজ বীরঙ্গনা ও বীরমুক্তিযোদ্ধার স্বিকৃতি চায়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সকল সংবাদ
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )
%d bloggers like this: